অনলাইনে নতুন ভোটার আবেদন করার নিয়ম ২০২৩

অনলাইনে নতুন ভোটার আবেদন করার নিয়ম ২০২৩

আমরা সকলেই জাতীয় পরিচয় পত্রের সঙ্গে পরিচিত। জাতীয় পরিচয় পত্রকে আমরা অনেকেই বিভিন্ন বিভিন্ন নামে চিনি। যেমন- ভোটার আইডি কার্ড, এনআইডি কার্ড ইত্যাদি। এটি বাংলাদেশের নাগরিকদের পরিচয় প্রদান করে। এছাড়া আমাদের জীবনে বিভিন্ন ক্ষেত্রে ভোটার আইডি কার্ড বিভিন্ন কাজে লাগে।

আমরা সকলেই জানি যে, ভোটার আইডি কার্ড কোথায় কোথায় ব্যবহৃত হয় বা ভোটার আইডি কার্ডের সুবিধা কি কি। গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশের সংবিধান অনুযায়ী দেশের কোন ব্যক্তির বয়স যদি ১৮ বছর বা তার উপরে হয় তাহলে সে ভোট প্রদান করতে পারবে।

আর এই ভোট প্রদান করতে হলে আপনার অবশ্যই একটি ভোটার আইডি কার্ড বা ন্যাশনাল আইডি কার্ড থাকতে হবে। অন্যথায় আপনি ভোট প্রদান করতে পারবেন না। (এখানে সকল ধরনের ভোটকে বোঝানো হয়েছে। যেমন- ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচন, পৌরসভা নির্বাচন, জাতীয় সংসদ নির্বাচন।)

তো এই পোস্টে আজকে আপনাকে দেখানো হবে- অনলাইনে নতুন ভোটার হওয়ার আবেদন করার নিয়ম

অনলাইনে নতুন ভোটার আবেদন

আমাদের মধ্যে অনেকেই আছে যারা এখনো ভোটার আইডি কার্ড পায়নি। মূলত তাদের জন্যই এই পোস্ট।

আপনি দুইভাবে ভোটার আইডি কার্ডের জন্য আবেদন করতে পারবেন।

  • ইউনিয়ন পরিষদ বা উপজেলা নির্বাচন অফিসে আবেদন করার মাধ্যমে
  • অনলাইনে ভোটার আইডি কার্ডের আবেদন করার মাধ্যমে

তো অনলাইনে ভোটার আইডি কার্ড তুলতে গেলে আপনার কিছু নিয়ম-কানুন মেনে চলে আবেদন করতে হবে। অন্যথায় আপনাকে নতুন ভোটারের অন্তর্ভুক্ত করা হবে না। নিচে এই শর্তগুলো দেয়া হলোঃ

  1. গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশের নাগরিক হতে হবে।
  2. সর্বশেষ পাওয়া আপডেট অনুযায়ী, আপনার জন্ম তারিখ ০১-০১-২০০৭ এ বা এর পূর্বে হতে হবে।
  3. কোনো তথ্য গোপন করা যাবে না।
  4. আগে থেকেই ভোটার হিসেবে নিবন্ধিত হয়ে থাকলে নতুনভাবে ভোটার হওয়ার আবেদন করা যাবে না।
  5. আবেদনের সময় ভুয়া কাগজপত্র জমা দেওয়া যাবে না।

উপরে দেওয়া শর্তগুলো অনুসরণ করে নতুন ভোটারের আবেদন করলেই কেবল আপনি নতুন ভোটার হিসেবে নিবন্ধিত হতে পারবেন।

নতুন ভোটার আবেদন করতে কি কি লাগে?

অনলাইনে নতুন ভোটার আবেদন করার ক্ষেত্রে আপনার কিছু প্রয়োজনীয় কাগজের প্রয়োজন হবে। নিচে এসব দরকারি কাগজপত্রের তালিকা দেওয়া হলো-

  • আবেদনকারীর অনলাইন জন্ম নিবন্ধন এর ফটোকপি
  • বোর্ড পরীক্ষার (এইচএসসি, এসএসসি বা জেএসসি) নম্বরপত্র বা সার্টিফিকেট বা এডমিট কার্ডের ফটোকপি
  • বিদ্যুৎ বিল বা অন্যান্য বিলের কাগজ (ঠিকানা প্রমাণ করার ক্ষেত্রে কাজে লাগে)
  • পিতার ন্যাশনাল আইডি কার্ডের ফটোকপি (মৃত হলে মৃত্যু সনদের ফটোকপির প্রয়োজন হবে)
  • মাতার ন্যাশনাল আইডি কার্ডের ফটোকপি (মৃত হলে মৃত্যু সনদের ফটোকপির প্রয়োজন হবে)
  • রক্তের গ্রুপ পরীক্ষার মেডিকেল সার্টিফিকেট
  • একটি মোবাইল নাম্বার (যেকোনো অপারেটরের)
  • ইউনিয়ন পরিষদ চেয়ারম্যান বা পৌরসভা কাউন্সিলরের সত্যায়িত প্রত্যয়ন পত্র

আরও পড়ুন- ভোটার আইডি কার্ড চেক করার নিয়ম ২০২৩

অনলাইনে নতুন ভোটার আবেদন করার ক্ষেত্রে উপরে দেওয়া ডকুমেন্ট বা কাগজগুলো আপনার অবশ্যই কাজে লাগবে। অন্যথায় আপনি আপনার ভোটার আইডি কার্ড বা এনআইডি কার্ড তুলতে পারবেন না।

নতুন ভোটার আবেদন করার নিয়ম

১. প্রথমে এই লিংকে ক্লিক করুন- services.nidw.gov.bd

২. এরপরে ‘আবেদন করুন’ এ ক্লিক করুন।

আবেদন

৩. ক্লিক করার পর নিচের মতো একটি পেজ ওপেন হবে। এখানে আপনি আপনার পুরো নাম (ইংরেজিতে), জন্ম তারিখ সঠিকভাবে লিখবেন এবং ক্যাপচা কোডটি পূরণ করে সাবমিটে ক্লিক করবেন।

নিবন্ধন
নিবন্ধন

৪. এরপরে একটি সচল মোবাইল নাম্বার দিয়ে ‘বার্তা পাঠান’ এ ক্লিক করুন।

ভেরিফাই
বার্তা পাঠান

৫. এরপর আপনার মোবাইলে একটি ভেরিফিকেশন কোড পাঠানো হবে। এই কোডটি দিয়ে ভেরিফাই করে নিন এবং ‘বহাল’ এ ক্লিক করুন।

ভেরিফাই
ভেরিফাই

৬. ভেরিফিকেশন হয়ে গেলে নিচের মতো একটি পেজ দেখতে পাবেন। এখানে আপনার ইউজারনেম (উদাহরণঃ saif1234, saif2023, saif845, saif) এবং পাসওয়ার্ড দিয়ে ‘বহাল’ এ ক্লিক করুন।

নিবন্ধন
নিবন্ধন

৭. এরপরে আপনি নিজের মত একটি পেজ দেখতে পাবেন। এখন আপনাকে প্রোফাইল সম্পাদনা করতে হবে।

প্রোফাইল
প্রোফাইল

৮. প্রোফাইল সম্পাদনা করার জন্য নিচের ছবিতে দেখানো ‘এডিট’ বাটনে ক্লিক করতন।

এডিট
এডিট

৯. এখন যে স্টেপটি আপনি পূরণ করতে যাবেন এটি সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ স্টেপ। অবশ্যই নির্ভুল ভাবে এবং মনোযোগ দিয়ে এই ফরমটি পূরণ করবেন। ফরমটা পূরণ করার পর সাবমিট করলে ডাউনলোড অপশন দেখতে পাবেন। সেখান থেকে ফরমটি ডাউনলোড করে নিন।

আমাদের অনলাইন আবেদন করার প্রক্রিয়া শেষ হলো। এরপরে নিচের ধাপটি অনুসরণ করুন।

নতুন ভোটার আবেদন ফরম

উপরে দেওয়া পদ্ধতি অনুসারে অনলাইনে নতুন ভোটার হওয়ার আবেদনের ফরমটি ডাউনলোড করার পর সেটি প্রিন্ট করে নিন। ফরমটি দেখতে হবে নিচের মতো এবং ফরমটির নাম ‘নিবন্ধন ফরম ২‘।

অনলাইনে নতুন ভোটার আবেদন ফরম ২ (১ম অংশ)
ভোটার আইডি ফরম ২ (১ম অংশ)
অনলাইনে নতুন ভোটার আবেদন ফরম ২ (২য় অংশ)
ভোটার আইডি ফরম ২ (২য় অংশ)
অনলাইনে নতুন ভোটার আবেদন ফরম ২ (৩য় অংশ)
ভোটার আইডি ফরম ২ (৩য় অংশ)

এই ফরমে কিছু তথ্য আগে থেকে পূরণ করা থাকবে। এবং যে তথ্যগুলো পূরণ করা থাকবে না, সেই তথ্যগুলো আপনাকে নির্ভুল ভাবে পূরণ করতে হবে। পূরণ করার পর প্রয়োজনীয় কিছু কাগজপত্রের সাথে এই ফর্মটি জমা দিতে হবে।

নতুন ভোটার আবেদন করলে কতদিন পর অনলাইন কপি পাওয়া যায়?

উপরে দেওয়া ফরমটি পূরণ করে নিকটস্থ নির্বাচন কমিশন অফিসে ফরম জমা দেওয়ার পরে আপনার দেওয়া তথ্য ও কাগজপত্রসমূহ যাচাই করে দেখা হবে।

সবকিছু ঠিকঠাক থাকলে আপনাকে বায়োমেট্রিক তথ্য যাচাই করার জন্য মেসেজ দেওয়া হবে এবং বায়োমেট্রিক তথ্য যাচাই করার পরেই আপনি ভোটার আইডি কার্ড হাতে পেয়ে যাবেন।

সাধারণভাবে বায়োমেট্রিক তথ্য নেওয়ার ১৫ থেকে ৩০ দিনের মধ্যেই এনআইডি কার্ড হাতে পেয়ে যাবেন। এক্ষেত্রে অল্প কিছুদিন দেরিও হতে পারে। তবে দেরি হওয়ার সম্ভাবনা খুবই কম।

শেষকথা

অনলাইনে নতুন ভোটার আবেদন করার নিয়ম সম্পর্কে উপরে আলোচনা করা হয়েছে এবং আবেদন করার সম্পূর্ণ পদ্ধতি শেয়ার করা হয়েছে। আশা করি আপনারা বিষয়গুলো বুঝতে পেরেছেন।

যদি বিষয়গুলো না বুঝতে পারেন তাহলে অবশ্যই কমেন্ট করে জানাবেন। আমরা আপনার প্রশ্নের উত্তর দেওয়ার চেষ্টা করবো। ধন্যবাদ ইডুটিউনবিডির সাথে থাকার জন্য।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *