আমেরিকা কাজের ভিসা ২০২৩ | আমেরিকা যেতে কত টাকা লাগে?

আমেরিকা কাজের ভিসা ২০২৩ | আমেরিকা যেতে কত টাকা লাগে?

আমরা জানি পৃথিবীর রাজধানী আমেরিকা। আমাদের সকলেরই ইচ্ছা থাকে আমেরিকা যাওয়ার। কিন্তু তা সম্ভব হয় না। কারণ বাংলাদেশ থেকে আমেরিকা ভিসা পাওয়া অনেক কঠিন। কিন্তু বর্তমান সময়ে আমেরিকা ও বাংলাদেশ সরকারের যৌথ উদ্যোগে বাংলাদেশ থেকে আমেরিকা যাওয়াটা অনেক সহজ হয়ে গিয়েছে।

বর্তমানে বাংলাদেশ থেকে যেকোনো মানুষ সহজেই আমেরিকা কাজের ভিসায় সেখানে যেতে পারে। কিন্তু সেখানে যাওয়ার জন্য একজন গ্রাহককে আমেরিকা কাজের ভিসার বেশকিছু নিয়ম কানুন মেনে চলতে হবে।

আমাদের মধ্যে অনেকেই জানতে চান আমেরিকা কাজের ভিসা ২০২৩, আমেরিকা কাজের ভিসা ইন্টারভিউ, বাংলাদেশ থেকে আমেরিকা যাওয়ার উপায়, আমেরিকা কাজের ভিসার প্রয়োজনীয় কাগজপত্র ও আমেরিকায় যেতে কত টাকা লাগে ইত্যাদি বিষয় নিয়ে।

তো আজকের পোস্টে আমি আপনাদের এই সব প্রশ্নের উত্তর দেওয়ার চেষ্টা করবো। চলুন শুরু করা যাক আজকের পোস্ট!

আরও পড়ুন- ভিসা বাতিল হওয়ার কারণ | ভিসা বাতিল হলে কি করবেন?

আমেরিকা কাজের ভিসা ইন্টারভিউ | আমেরিকা যেতে শিক্ষাগত যোগ্যতা

আমেরিকা যাওয়ার জন্য আপনাকে অবশ্যই ইংরেজি ভাষায় দক্ষতা থাকতে হবে। আপনার যদি ইংরেজি ভাষায় দ্ভাল দক্ষতা থাকে তাহলে আপনি আমেরিকা কাজের ভিসা খুব সহজেই পেয়ে যাবেন।

আমেরিকা জব ভিসার জন্য IELTS স্কোর এর প্রয়োজন হয়ে থাকে। কিন্তু এমন কিছু আমেরিকান জব রয়েছে যেই জবে আপনি IELTS স্কোর ছাড়া মোটামুটি ইংরেজিতে দক্ষতা থাকলেই যেতে পারবেন। তবে আপনাকে সেখানে মানুষদের ইংরেজি ভাষায় কথোপকথন করতে হবে।

সুতরাং বুঝতেই পারছেন আমেরিকা যাওয়ার জন্য অবশ্যই আপনাকে ইংরেজি ভাষা শিখতে হবে। কারণ আপনি যদি ইংরেজি ভাষায় সেখানকার মানুষদের সাথে কথা বলতে না পারেন তাহলে আপনি বেশ সমস্যার সম্মুখীন হবেন।

See also  ইন্ডিয়ান ভিসা চেক করার নিয়ম 2023

তাই যখন কোনো আমেরিকার কোম্পানি বা প্রতিষ্ঠান আপনার ইন্টারভিউ নিবে, তখন যদি আপনি তাদের সাথে ইংরেজি ভাষায় কথা বলতে না পারেন, তাহলে আপনি সেই কোম্পানি বা প্রতিষ্ঠানে কোনো কাজ পাবেন না। আশা করি বুঝতে পেরেছেন।

আমেরিকা কাজের ভিসার প্রয়োজনীয় কাগজপত্র

আমেরিকায় যাওয়ার জন্য আপনার কিছু কাগজপত্রের প্রয়োজন হবে। এগুলোর একটি তালিকা নিচে দেওয়া হল-

  1. আপনার বৈধ ডিজিটাল পাসপোর্ট (কমপক্ষে ৬ মাস মেয়াদী পাসপোর্ট)
  2. পাসপোর্ট সাইজের ছবি (সদ্য তোলা হয়েছে এমন)
  3. আপনার নাগরিকত্ব সনদপত্র
  4. কোভিড-১৯ করোনা ভাইরাসের ভ্যাকসিন সনদ (বর্তমানে প্রয়োজন নাও হতে পারে)
  5. আপনার ন্যাশনাল ভোটার আইডি বা এনআইডি কার্ড
  6. জন্ম নিবন্ধন সনদ
  7. পুলিশ ক্লিয়ারেন্স সার্টিফিকেট
  8. ব্যাংক স্টেটমেন্ট
  9. মেডিকেল রিপোর্ট বা মেডিকেল ফিটনেসের সনদ।
  10. লিগেল আইডেন্টিটির কাগজপত্র
  11. ভিসা আবেদন পত্র।

আমেরিকা কাজের ভিসা আবেদন

আমেরিকায় কাজের ভিসা পাওয়ার জন্য আপনাকে প্রথমে আবেদন করতে হবে। বর্তমানে আপনি অনলাইনেই অতি সহজে আবেদন প্রক্রিয়া সম্পন্ন করতে পারবেন।

তো অনলাইনে আমেরিকা কাজের ভিসা আবেদন করার জন্য আপনাকে প্রথমে এই https://bd.usembassy.gov/visas/ ওয়েবসাইটে প্রবেশ করতে হবে। তারপর সেখানে আপনার প্রয়োজনীয় সকল তথ্য দিয়ে আবেদন ফরম পূরণ করতে হবে। এভাবেই আপনি আমেরিকা কাজের ভিসার আবেদন করতে পারবেন।

কিন্তু আপনারা যারা আমেরিকা ভিসার জন্য অনলাইনে আবেদন করতে চান না, তারা ইচ্ছা করলে বাংলাদেশ প্রবাসী কল্যাণ মন্ত্রণালয়ে যোগাযোগ করতে পারেন। বাংলাদেশ থেকে আমেরিকা যাওয়ার জন্য আপনাকে সর্বপ্রথম বাংলাদেশ প্রবাসী কল্যাণ মন্ত্রণালয়ে যোগাযোগ করতে হবে। তাহলে আপনি ভিসা সংক্রান্ত কোনো জালিয়াতি বা প্রতারণার শিকার হবেন না।

আমেরিকা ওয়ার্ক পারমিট ভিসা

আপনাদের অবশ্যই জানা প্রয়োজন যে, আমেরিকা কাজের ভিসা এবং ওয়ার্ক পারমিট ভিসার মধ্যে কোন পার্থক্য নেই। দুটি একই ধরনের ভিসা।

See also  কাতার থেকে বাংলাদেশ বিমানের টিকেটের দাম ২০২৩

আমেরিকায় গিয়ে যারা শ্রমিক হিসেবে কাজ করবে তাদের ওয়ার্ক পারমিট ভিসা নিতে হবে। আমাদের দেশ থেকে অসংখ্য মানুষ আমেরিকা কাজ করার জন্য যায়। আপনিও যদি আমি একা কাজ করার জন্য যান তাহলে আমেরিকা ওয়ার্ক পারমিট ভিসা করতে হবে।

বর্তমানে আমেরিকা কাজের ভিসা চালু করা হয়েছে। কিন্তু আমেরিকা ওয়ার্ক পারমিট ভিসা নিয়ে আমাদের দেশের অনেক দালাল সংস্থা লোভনীয় বিজ্ঞাপন দিচ্ছে। আপনাকে এরকম দালাল থেকে অবশ্যই দূরে থাকতে হবে।

আমি আগেই বলেছি, আমেরিকা যাওয়ার জন্য আপনাকে অবশ্যই ইংরেজি ভাষায় দক্ষতা অর্জন করতে হবে। আপনি যদি ইংরেজি ভাষায় ভালোভাবে কথা বলতে পারেন তাহলে খুব তাড়াতাড়ি আপনি আমেরিকান ভিসা পেয়ে যাবেন।

আমেরিকা কাজের ভিসা খরচ | বাংলাদেশ থেকে আমেরিকা যেতে কত টাকা লাগে

আমেরিকা কাজের ভিসার মূল্য সাধারনভাবে নির্ধারণ করা কঠিন কাজ। এই খরচ বিভিন্ন সময় বিভিন্ন হতে পারে। অনেক সময় দেখা যায়, আপনি আমেরিকায় যে কোম্পানিতে কাজ করতে যাবেন সেই কোম্পানি আপনার সকল খরচ বহন করে। তাহলে এক্ষেত্রে আপনার ভিসার খরচ কম হবে।

আবার সেই আমেরিকান কোম্পানি যদি আপনার খরচ বহন না করে, তাহলে স্বাভাবিক ভাবেই আপনার ভিসা করতে অনেক টাকা লাগবে। কিন্তু আনুমানিক ভাবে বলা যায়, আমেরিকা কাজের ভিসার মূল্য আনুমানিক ৮ লক্ষ টাকা। আশা করি বুঝতে পেরেছেন।

শেষকথা

তো বন্ধুরা উপরে আমেরিকা কাজের ভিসা ২০২৩ | আমেরিকা যেতে কত টাকা লাগে? – এ সম্পর্কে বিস্তারিতভাবে আলোচনা করা হয়েছে।আশা করি বুঝতে পেরেছেন।

অন্যান্য ভিসা সম্পর্কিত আরো অনেক পোস্ট এই ওয়েবসাইটে দেওয়া আছে। যারা যারা ভিসা সম্পর্কে জানতে চান তারা সেই পোস্টগুলো দেখতে পারেন। আশা করি আপনাদের কাজে দিবে।

আরও পড়ুন- অস্ট্রেলিয়া কাজের ভিসা 2023 | অস্ট্রেলিয়া কৃষি ভিসা বিস্তারিত

যদি আমেরিকার ভিসা সম্পর্কে কোনো বিষয় না বুঝতে পারেন তাহলে অবশ্যই আমাদের কমেন্ট করে জানাবেন। আমরা আপনার প্রশ্নের উত্তর দেওয়ার চেষ্টা করবো। ধন্যবাদ আমাদের সাইটের সাথে থাকার জন্য। আসসালামু আলাইকুম।

লেখক-  Mohammad Saif Hasan

Tags- বাংলাদেশ থেকে আমেরিকা যেতে কত টাকা লাগে, আমেরিকা কাজের ভিসা ২০২৩, বাংলাদেশ থেকে আমেরিকা যেতে কত টাকা লাগে?, বাংলাদেশ থেকে আমেরিকা যাওয়ার উপায় ২০২৩, আমেরিকার ভিসা খরচ, ভারত থেকে আমেরিকা যেতে কত টাকা লাগে, আমেরিকা টুরিস্ট ভিসা ২০২৩, স্টুডেন্ট ভিসায় আমেরিকা যেতে কত টাকা লাগে, আমেরিকার ভিসা পাওয়ার যোগ্যতা ২০২৩, আমেরিকা ভিসা আবেদন

See also  অস্ট্রেলিয়া কাজের ভিসা 2023 | অস্ট্রেলিয়া কৃষি ভিসা বিস্তারিত

Leave a Comment