ইউটিউব চ্যানেল খোলার নিয়ম ২০২৩

হ্যালো ভিউয়ার্স, আশা করি সকলে অনেক ভালো আছেন। আপনাদের কে আমাদের এই সাইটে আমার পক্ষ থেকে জানাই স্বাগতম। আজকের পোস্ট এ আমি আপনাদের সাথে ইউটিউব চ্যানেল খোলার নিয়ম এই বিষয় টি নিয়ে কথা বলবো। তো চলুন দেরি না করে পোস্ট টি শুরু করে দেওয়া যাক।

 

বর্তমানে সব ধরণের অনলাইন কন্টেন্ট এর ট্রাফিকের একটি বড় অংশ আসে ভিডিও কন্টেন্ট এর মাধ্যমে। প্রত্যক দিন প্রায় কোটি কোটি ইউটিউব ভিডিও দেখা হয়। এ কারণে এখন অনেকেই ইউটিউব চ্যানেল খুলে সেটা থেকে আয় করার পদ্ধতিটি বেছে নিয়েছে।

ইউটিউব চ্যানেল খোলার নিয়ম খুবই সহজ। যে কেউ চাইলেই ইউটিউব চ্যানেল খুলতে পারে। আপনিও কি একটি ইউটিউব চ্যানেল খুলতে চান? যদি চান তাহলে আজকের এই পোস্ট টি পুরো পুরি দেখুন। আশা করি তবে ভালো ভাবে বুঝতে পারবেন ইউটিউব চ্যানেল খোলার নিয়ম।

 

ইউটিউব কী?

বর্তমানে এন্ড্রয়েড ফোন চালান আর ইউটিউব কী জানেন না এমন মানুষ নেই বললেই চলে। আসলে ইউটিউব হলো এক ধরণের ভিডিও শেয়ারিং প্লাটফর্ম। ইউটিউব ব্র‍্যান্ড টি হলো আমেরিকান।

২০০৫ সালে পেপাল এর প্রাক্তন ৩ জন কর্মচারী মিলে এই প্লাটফর্ম টি তৈরি করেন। প্রথম দিকে এটি ডেটা শেয়ারিং জন্য তৈরি করা হলেও পরে তা ভিডিপ শেয়ারিং এর জন্য জনপ্রিয়তা পায়। ক্রমান্বয়ে অধিক জনপ্রিয়তা পাওয়ার জন্য গুগল ২০০৬ সালের নভেম্বর মাসের দিকে 1.65 বিলিয়ন মার্কিন ডলার এর বিনিময়ে ইউটিউব কিনে নেয়।

ইউটিউব চ্যানেল কী?

আপনার নিশ্চয়ই একটি ফেসবুক আইডি বা ফেসবুক একাউন্ট আছে? যদি ফেসবুক আইডি থাকে তাহলে ফেসবুক এর একটি প্রোফাইল ও আছে তাই না? ঠিক তেমনই ইউটিউব এ ভিডিও আপলোড করার জন্য একটি আইডি খুলতে হয়। এই আইডিকে ই মূলত ইউটিউব চ্যানেল বলা হয়।

 

ইউটিউব চ্যানেল খুলতে কী কী প্রয়োজন হয়?

ইউটিউব যেহেতু একটি অনলাইন প্লার্টফ্রম তাই সর্ব প্রথম আমাদের ইন্টারনেট কানেকশন লাগবে ইউটিব চ্যানেল খোলার জন্য। আর দ্বিতীয়ত যেটা লাগবে সেটা হলো একটি ইমেইল একাউন্ট।

আর ইউটিউব চ্যানেল খোলার পর সেটার কিছু জিনিস লক থাকে। সেগুলো আনলক করার জন্য একটি মোবাইল নাম্বার দিয়ে ভেরিফাই করতে হয়। এর জন্য বলাই যায় যে, একটি ইউটিউব চ্যানেল খুলতে প্রয়োজন হবেঃ-

১. ইন্টারনেট কানেকশন,
২. ইমেইল আইডি,
৩. মোবাইল নাম্বার।

 

আরো পড়ুনঃ ইমেইল আইডি খোলার নিয়ম

 

তো আপনার কাছে এই তিনটি জিনিস থাকলে আপনি খুব সহজেই একটি ইউটিউব চ্যানেল খুলতে পারবেন। তো চলুন এবার আমরা ইউটিউব চ্যানেল খোলার নিয়ম সম্পর্কে জেনে নেই।

 

ইউটিউব চ্যানেল খোলার নিয়ম

ইউটিউব চ্যানেল খোলার নিয়ম জানতে হলে আপনাকে আগে সিওর হতে হবে আপনি কী দিয়ে ইউটিউব চ্যানেল খুলতে চান। মানে আপনি মোবাইল দিয়ে নাকি কম্পিউটার দিয়ে ইউটিউব চ্যানেল খুলতে চান সেটা আগে সিউর হতে হবে। তো নিচে আমি দুই ভাবেই ইউটিউব চ্যানেল খোলার নিয়ম সম্পর্কে বলছি।

 

মোবাইল দিয়ে ইউটিউব চ্যানেল খোলার নিয়ম

মোবাইল দিয়ে ইউটিউব চ্যানেল খোলার নিয়ম অনেক সহজ। কেননা বর্তমানে সব ফোনেই ইউটিউব এপ টি অটোমেটিক দিয়ে দেয়। ফলে নতুন করে ঝামেলার কোনো সমস্যা নেই। তো চলুন এবার জেনে নেই মোবাইল দিয়ে ইউটিউব চ্যানেল খোলার নিয়ম।

১. প্রথমে ডাটা কানেকশন অন করে আপনার ফোন থেকে ইউটিউব এপ টি তে প্রবেশ করুন।

২. এবার একদম উপরের ডান সাইডে আপনার প্রোফাইল এর লোগো তে ক্লিক করুন।

৩. এবার আপনি সেখানে দেখতে পাবেন অনেক অপশন। সেখান থেকে আপনি “Your Channel” নামের একটি অপশন পাবেন। সেখানে ক্লিক করে দিন।

৪. এবার সেখানে দেখুন আপনার থেকে চ্যানেলের লোগো এবং নাম চাচ্ছে। তো সেগুলো দিয়ে দিন। এবং নিচের Create Channel এ ক্লিক করে দিন

৫. ব্যাস আপনার ইউটিউব চ্যানেল খোলা হয়ে গেলো।

 

কম্পিউটার দিয়ে ইউটিউব চ্যানেল খোলার নিয়ম

ককম্পিউটার দিয়ে ইউটিউব চ্যানেল খোলার নিয়ম ও অনেক টাই সোজা। চলুন তাহলে দেখে নেই যে কম্পিউটার দিয়ে ইউটিউব চ্যানেল খোলার নিয়ম।

১. প্রথমেই ইন্টারনেট কানেকশন অন করে নিন।

২. এবার যেকোনো একটি ব্রাউজার থেকে youtube.com এই লিংক এ চলে যান।

৩. এরপর সেখানে গেলে উপরের ডান দিকে প্রোফাইল লোগো বা সাইন ইন না থাকলে সাইন ইন বাটন পাবেন। সেখানে ক্লিক করবেন।

৪. এবার Your Channel এ ক্লিক করে দিন।

৫. এবার চ্যানেলের লোগো ও নাম দিয়ে ক্রিয়েট একাউন্ট বাটনে ক্লিক করে দিন।

৬. ব্যাস এখান থেকেও আপনার ইউটিউব একাউন্ট খোলা হয়ে গেলো।

 

ইউটিউব চ্যানেল খোলার নিয়ম
ইউটিউব চ্যানেল ভেরিফাই নিয়ম

 

ইউটিউব চ্যানেল ভেরিফাই করার নিয়ম

আপনারা ইউটিউব চ্যানেল খোলার নিয়ম তো জেনে নিলেন। কিন্তু এভাবে ইউটিউব চ্যানেল খুললেই হবে না। এভাবে খুললে আপনার ইউটিউব চ্যানেল এ কিছু সিস্টেম লক থাকবে। তো এই লক সিস্টেম গুলো কী কী চলুন সেটা জেনে নেই।

১. ১৫ মিনিটের বেশি বড় ভিডিও আপলোড করতে পারবেন না।

২. ভিডিও তে কাস্টম থাম্বনেইল আপলোড করতে পারবেন না।

৩. অনলাইন লাইভ স্ট্রিমিং করতে পারবেন না।

৪. চ্যানেল এ এডসেন্স অর্থাৎ কন্টেন্ট আইডি ক্লেইম এর জন্য আবেদন করতে পারবেন না।

তো এই জিনিস গুলো আনলক করার জন্য, আমাদের ইউটিউব চ্যানেল ভেরিফাই করতে হবে। তো চলুন ইউটিউব চ্যানেল ভেরিফাই করার নিয়ম জেনে নেই।

১. প্রথমেই যে কোনো ব্রাউজার থেকে studio.youtube.com এই লিংক এ চলে যান।

২. যদি ইউটিউব চ্যানেল এ লগ ইন করা না থাকে তাহলে লগ ইন করে নিন।

৩. বাম দিকে দেখবেন একটি মেনু আছে। সেখান থেকে সেটিংস এ ক্লিক করে দিবেন।

৪. চ্যানেল ট্যাব টি সিলেক্ট করে দিন।

৫. এবার Verify Phone Number এ ক্লিক করে দিন।

৬. এরপর Text me a verify code অপশন টি সিলেক্ট করে দিন।

৭. এরপর select your country থেকে আপনার দেশ সিলেক্ট করে দিন।

৮. এরপর আপনাকে একটি বক্স দিবে। সেখান থেকে আপনার একটি মোবাইল নাম্বার দিবেন।

৯. এবার সেই নাম্বার এ একটি কোড যাবে। সেটায় কোড টি দিয়ে ভেরিফাই করে দিবেন

১০. ব্যাস আপনার ইউটিউব চ্যানেল ভেরিফাই হয়ে যাবে।

ইউটিউব চ্যানেল খোলার নিয়ম টি ফলো করলে খুব সহজেই একটি ইউটিউব চ্যানেল খুলতে পারবেন। এবং ভেরিফাই করে নিতে পারবেন। তো ইউটিউব চ্যানেল খোলার নিয়ম টি ভালো করে ফলো করলে অবশ্যই আপনি ইউটিউব চ্যানেল খুলতে পারবেন।

তবে ইউটিউব চ্যানেল খোলার পরই কিন্তু আমরা চাই যে সেখানে অনেক সাবস্ক্রাইবার থাকুক। তো এটা চাইলেই সম্ভব হয় না। তবে একটু পরিশ্রম করলেই তা সম্ভব হবে। আপনি যদি প্রতিনিয়ত নতুন নতুন নিজের ভিডিও আপলোড করেন তবে দেখবেন খুব দ্রুতই চ্যানেল এগিয়ে যাবে।

তবে আপলোড করে থেমে থাকলেই চলবে না। আপনারা ভিডিও আপলোড করার পর ভিডিও এর লিংক বিভিন্ন গ্রুপে বা পেজ এ শেয়ার করুন। বিশেষ করে বড় বড় গ্রুপে। তবে দেখবেন খুব দ্রুতই আপনার ইউটিউব চ্যানেল এর সাবস্ক্রাইবার বৃদ্ধি পাচ্ছে।

 

 

 

তো ভিউয়ার্স আশা করছি এই পোস্ট টি আপনাদের কাছে অনেক টা ভালো লেগেছে। ভালো লেগে থাকলে কিন্তু অবশ্যই কমেন্ট করে জানাবেন আমাদের। আর এরকম সব পোস্ট পেতে প্রতিদিন ভিজিট করতে থাকুন আমাদের এই ওয়েব সাইট টি। আবার দেখা হবে পরবর্তী কোনো পোস্ট এ। সে পর্যন্ত সকলে ভালো থাকুন সুস্থ থাকুন। আল্লাহ হাফেয।

 

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *