টেকনোলজি

গুগল মিট ব্যবহারের নিয়ম ও সুবিধা

গুগল মিট ব্যবহারের নিয়ম ও সুবিধা

 

হ্যালো প্রিয় বন্ধুরা, আশা করি আপনারা সকলেই অনেক ভালো আছেন। আপনাদের কে আমাদের এই সাইটে আমার পক্ষ থেকে জানাই স্বাগতম। আজকের পোস্ট এ আমি আপনাদের সাথে গুগল মিট ব্যবহারের নিয়ম ও সুবিধা এই বিষয় টি নিয়ে কথা বলবো। তো চলুন দেরি না করে পোস্ট টি শুরু করে দেওয়া যাক।

 

গুগল মিট ব্যবহারের নিয়ম ও সুবিধা

 

আপনারা যদি বাড়িতে বসেই নিজেদের কোম্পানী কিংবা প্রতিষ্ঠানের সব ক্লায়েন্টদের সাথে মিটিং করতে চান তবে গুগল মিট হবে আপনাদের জন্য সব থেকে ভালো একটি এপস। করোনার জন্য লক ডাউন সময়ে এই এপ ব্যবহার করে অনেক শিক্ষক, শিক্ষার্থীরা অনলাইনে ক্লাস করেছিলো। আবার বর্তমানেও এই কাজেও এই এপ ব্যবহার করা হচ্ছে।

অনেকেই আছেন নানা কারণে গুগল মিট ব্যবহার করতে চান। তবে গুগল মিট ব্যবহারের নিয়ম ও সুবিধা সম্পর্কে অনেকেই জানেন না। তাই আজকে আমি আপনাদের সাথে এই বিষয় গুলো শেয়ার করবো। তো চলুন শুরু করা যাক।

 

গুগল মিট কি?

 

গুগল মিট হলো গুগল কোম্পানীদের দ্বারা তৈরি একটি ভিডিও কন্সফারেন্স প্লাটফর্ম। এই এপ এর মাধ্যমে সর্বোচ্চ ১০০ জন ব্যক্তির সাথে ভিডিও কন্সফারেন্স করা সম্ভব এবং এবং সব বিষয় নিয়েই আলাপ আলোচনা করা যাবে।

গুগল এই এপ টি কে শুধু মাত্র ভিডিও কলের মাধ্যমে যোগাযোগ করার জন্য তৈরি করেছে। এই এপ টি ব্যবহার করে খুব সহজেই ভিডিও কলে অনেকজন একত্রে কথা বলা সম্ভব।

 

গুগল মিট ও গুগল হ্যাংআউটস কি একই?

 

আগে গুগল এর হ্যাংসআউট এপ টি বেশ জনপ্রিয় ছিলো। তবে বর্তমানে গুগল সেই এপ কে বাদ দিয়ে দিয়েছে। এবং এই এপস এর বদলে গুগল, “গুগল মিট” এপ কে ভিডিও কন্সফারেন্স এর জন্য বিশেষ ভাবে তৈরি করেছে।

 

আরো পড়ুনঃ ভালো মেমোরি কার্ড চেনার উপায়।

 

গুগল মিট আইডি তৈরির নিয়ম

 

সাধারণত প্রতিটা মোবাইল এই একটি করে জিমেইল লগ ইন থাকে। তো আপনারা গুগল মিট এপ ওপেন করলে আপনাদের সাইন ইন করতে বলবে। তখন নিজের জিমেইল সিলেক্ট করবেন এবং পারমিশন চাইলে এলাও করে দিবেন তবেই আপনার গুগল মিট আইডি তৈরি করতে পারবেন।

 

গুগল মিট এপ ডাউনলোড এর নিয়ম

 

গুগল মিট এপ ডাউনলোড এর নিয়ম অনেক সহজ। গুগল মিট এপ ডাউনলোড করার জন্য প্রথমে গুগল প্লে স্টোর এপ টি ওপেন করে নিন। এরপর সেখানে সার্চ বারে Google Meet লিখে সার্চ দিলেই প্রথমে আসা Google LLC কোম্পানী এর এপ টি ডাউনলোড করে নিবেন।

তবে আপনারা যদি ল্যাপটপ বা কম্পিউটার ইউজার হন তাহলে http://meet.google.com এই লিংক থেকে গুগল মিট এপ টি ডাউনলোড করে নিবেন।

 

গুগল মিট ব্যবহারের নিয়ম ও সুবিধা
গুগল মিট ব্যবহারের নিয়ম ও সুবিধা

গুগল মিট ব্যবহার করার নিয়ম

 

গুগল মিট ব্যবহার করা অনেক কঠিন, এটা অনেকেই মনে করেন। তবে এটা একদম সঠিক নয়। গুগল মিট ব্যবহার করা অনেক সোজা। গুগল মিট ব্যবহার করার নিয়ম নিচে দেওয়া হলো।

গুগল মিট এপ ওপেন করলে দুইটা অপশন পাবেন, 1. New Meeting, 2. Join With A Code. এই দুইটি অপশন এর ব্যবহার নিচে দেওয়া হলো।

১. New Meeting: নতুন কোনো মিটিং শুরু করার জন্য এটায় ক্লিক করবেন।

২. Join with a Code: অন্য কারো তৈরি করা মিটিং এ প্রবেশ করার জন্য সেই মিটিং কোড দিয়ে প্রবেশ করতে পারবেন।

 

নতুন মিটিং শুরু করার নিয়ম

 

গুগল মিট ব্যবহার করে নতুন মিটিং শুরু করার জন্য এপ এ প্রবেশ করে New Meeting অপশনে ক্লিক করে দিন। এরপর দেখবেন আপনাকে কয়েকটি অপশন দিয়েছে।

সেখানে আপনি নতুন কোনো মিটিং শুরু করার পূর্বে “Get a Meeting link to share” অপশন এর সাহায্যে কোন মিটিং শুরু করার পূর্বে আপনার শিক্ষার্থী, বন্ধু, ক্লায়েন্ট অথবা যে কাউকে মিটিং সম্পর্কে জানিয়ে দিতে পারবেন।

তবে যদি আপনি যদি নিজে এখন ই কোনো মিটিং স্টার্ট করতে চান তবে “Start an instant Meeting” অপশনটিতে ক্লিক করে সাথে সাথে মিটিং শুরু করতে পারবেন। মিটিং শুরু করার পরে আপনার সামনে অনেক অপশন আসবে যেগুলো দিয়ে মিটিং কন্ট্রোল করতে পারবেন।

 

কোনো মিটিং এ জয়েন করার নিয়ম

 

গুগল মিট এপ এ প্রবেশ করে Join with a code অপশনে ক্লিক করে ইনভাইট কোড দ্বারা সেই মিটিং এ প্রবেশ করতে পারবেন।

 

গুগল মিট ব্যবহারের সুবিধা

 

গুগল মিট এর মতো আরো অনেক ভিডিও কন্সফারেন্স এপ আছে। যেমনঃ Zoom ইত্যাদি। তো অন্যান্য এপ বাদ দিয়ে এই গুগল মিট কেন ব্যবহার করবো তাই না? গুগল মিট ব্যবহারের নিয়ম ও সুবিধাই আপনাকে বাধ্য করবে গুগল মিট এপ কে ব্যবহার করতে। তো চলুন গুগল মিট ব্যবহারের সুবিধা সম্পর্কে জেনে নেই।

১. যে কোনো মিটিং এ ১০০ জন জয়েন করতে পারবেন। যা অন্যান্য এপ থেকে বেশি পরিমাণ ব্যক্তি জয়েন নিতে সাহায্য করে।

২. আইফোন, ল্যাপটপ, এন্ড্রয়েড বা যে কোনো ডিভাইসে এটা সাপোর্ট করবে।

৩. মিটিং শুরু করার আগে মিটিং প্রিভিউ করতে পারবেন।

৪. ভিডিওতে স্ক্রিন শেয়ার করতে পারবেন।

৫. অন্যদের সাথে মেসেজে কথা বলতে পারবেন ভিডিও চলা কালীন।

৬. যে কোনো ধরনের ফাইল, ডকুমেট ইত্যাদি শেয়ার করতে পারবেন।

৭. মিটিং এ কারো থেকে কোনো নয়েজ আসলে বা কারো আচরণ খারাপ লাগলে তাকে কিছুক্ষণের জন্য মিউট করে রাখতে পারবেন বা রিমুভ করে দিয়ে পারবেন।

৮. একটি মিটিং একটানা সর্বোচ্চ ১ ঘন্টা পর্যন্ত করতে পারবেন।

 

শেষ কথা

 

তো প্রিয় বন্ধুরা আজকের এই পোস্ট এ আপনারা জানলেন, গুগল মিট ব্যবহারের নিয়ম, গুগল মিট ব্যবহারের সুবিধা, কিভাবে গুগল মিট ডাউনলোড করতে হয় ইত্যাদি বিষয়। আশা করছি এই পোস্ট টি আপনাদের কাছে অনেক টা ভালো লেগেছে।

ভালো লেগে থাকলে কিন্তু অবশ্যই কমেন্ট করে জানাবেন আমাদের। আর এরকম সব পোস্ট পেতে প্রতিদিন ভিজিট করতে থাকুন আমাদের এই ওয়েব সাইট টি তে। আবার দেখা হবে পরবর্তী কোনো পোস্ট এ। সে পর্যন্ত সকলে ভালো থাকুন সুস্থ থাকুন। আল্লাহ হাফেয।

 

Related Articles

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *