পাতলা পায়খানার ট্যাবলেট এর নাম

হ্যালো ভিউয়ার্স, আশা করি সকলে অনেক ভালো আছেন। আপনাদের কে আমাদের এই সাইটে আমার পক্ষ থেকে জানাই স্বাগতম। আজকের পোস্ট এ আমি আপনাদের সাথে পাতলা পায়খানার ট্যাবলেট এর নাম এই বিষয় টি নিয়ে কথা বলবো। তো চলুন দেরি না করে পোস্ট টি শুরু করে দেওয়া যাক।

পাতলা পায়খানা কেন হয়?

পাতলা পায়খানা অর্থাৎ ডায়রিয়া খুব একটা বড় ধরণের রোগ না হলেও মাঝে মাঝে এটি আমাদেরকে কিন্তু বেশ ভুগিয়ে থাকে। গবেষকদের মতে, রোটা এবং নোরা ভাইরাসের আক্রান্তে এই পাতলা পায়খানা হয়ে থাকে।

আরও পড়ুন – পাতলা পায়খানা হলে যেসব খাবার খেতে হয়। 

তবে যদি পাতলা পায়খানা এর সাথে রক্ত বের হতে থাকে তাহলে এটা ব্যাকটেরিয়া এর প্রভাব ধরতে হবে এবং যত দ্রুত সম্ভব ডক্টর এর পরামর্শ নিতে হবে। এসকল ক্ষেত্রে ব্যাপারটাকে সহজ ভাবে নেওয়া উচিত নয়।

পাতলা পায়খানা হলে করণীয়

পাতলা পায়খানা বা ডায়রিয়া যেহেতু এক ধরণের রোগ তাই অবশ্যই এটি হলে ঔষধ খেতে হবে। তবে প্রথমেই ঔষধ খাওয়ার পূর্বে ডাবের পানি, লেবুর শরবত (চিনি ছাড়া লবণ দিয়ে), এসএমসি ওর স্যালাইন খাওয়া উচিত।

এর পরেও যদি ডায়রিয়া না কমে তাহলে অবশ্যই ঔষধ তথা ট্যাবলেট খাওয়া উচিত। আর পরেও না কমলে অবশ্যই ডাক্তার এর কাছে যেতে হবে বা পরামর্শ নিতে হবে।

পাতলা পায়খানা কি ঔষধ খেতে হবে

সকল ব্যাধিরই ঔষধ থাকে। তেমনি ডায়রিয়ার ও অনেক গুলোর ঔষধ রয়েছে। তবে ডায়রিয়া তে ভালো কাজে দেয় এমন কিছু ঔষধ হলোঃ- ফ্লাজিল এবং মেট্রিল। মনে রাখবেন শুধু মাত্র প্রাপ্ত বয়স্কদের জন্য এই দুটি ঔষধ ডাক্তারের পরামর্শ ছাড়া খাওয়া যাবে।

তবে অন্যান্য ঔষধ ডাক্তারের পরামর্শ নিয়ে খেতে হবে এবং বাচ্চাদেরকে ঔষধ খাওয়ানোর আগে অবশ্যই ডাক্তারের পরামর্শ নিতেই হবে। কেননা তারা অনেক সংবেদনশীল হয়ে থাকে।

পাতলা পায়খানার ঔষধ এন্টিবায়োটিক

ডায়রিয়া খুব একটা মারাত্মক হয় না ফলে এর জন্য এটি হলে এন্টিবায়োটিক খাওয়ার খুব একটা প্রয়োজন হয় না। তবে যদি, মারাত্মক হয়ে দাড়ায় তবে এটি নিধন করার জন্য কিছু ঔষধ আছে যা উপরে বলেছি।

কিন্তু যদি অত্যান্ত মারাত্মক হয়ে যায় তাহলে এর জন্য কয়েকটি এন্টিবায়োটিক রয়েছে যেমনঃ- সিপ্রোফ্লক্সাসিন, মেট্রোনিডাজল বা অ্যাজিথ্রোমাইসিন ইত্যাদি। তবে এগুলো খাওয়ার আগে ডাক্তারের পরামর্শ নিতেই হবে। এছাড়া এটি খাওয়া মটেও ঠিক হবে না। আর খুব মারাত্মক না হলে এটা খাওয়ার দরকার নেই।

পাতলা পায়খানার ট্যাবলেট এর নাম
পাতলা পায়খানার ট্যাবলেট এর নাম

বাচ্চাদের পাতলা পায়খানার ঔষধের নাম

বাচ্চাদের ডায়রিয়া হলে গেলে সেটি সারানোর জন্য লেবুর রস দিয়ে শরবত (চিনি ছাড়া লবণ দিয়ে), ডাবের পানি কিংবা একটি এমএমসি অর স্যালাইনই যথেষ্ট সেটি সারানোর জন্য। তবে এগুলো দিয়ে না সারলে অতি অল্প পাওয়ার এর ট্যাবলেট খাওয়াতে পারেন। এর জন্য আমার মনে হয়, বাচ্চাদের জন্য “অ্যামোডিস” ট্যাবলেট টিই যথেষ্ট ডায়রিয়া নিধন এর জন্য।

ছাগলের পাতলা পায়খানার ট্যাবলেট এর নাম

ছাগলের ডায়রিয়া হলে “ডাইরোভেট এবং সালফো-৩ এই দুটি ট্যাবলেট একসাথে ৩ দিন খাওয়াতে হবে। ৩ দিনে সুস্থ না হলে আরো ২ দিন বাড়িয়ে ৫ দিন খাওয়াতে হবে। এবং এরই সাথে রাইস স্যালাইন টি দিনে ৩ বেলা খাওয়াতে পারেন ছাগলের ডায়রিয়া নিধন এর জন্য।

আরো পড়ুনঃ বমির ট্যাবলেট এর নাম

গরুর পাতলা পায়খানার ট্যাবলেট এর নাম

গরুর ডায়রিয়ার জন্যও ” সালফো -৩ বা সালফাডিন ” খাওয়াতে পারেন। এবং এর সাথে কিছু স্যালাইন ও খাওয়াতে পারেন। যদি গরুটি গর্ভাবস্থায় থাকে তাহলেও এই ঔষধটি খাওয়ানো নিরাপদ। তাই এই ঔষধ টি গরুর ডায়রিয়া কমানোর জন্য বেশ ভালো কাজে দিবে।

পাতলা পায়খানা হলে কী কী খাওয়া উচিত

ডায়রিয়া বা পাতলা পায়খানা মূলত যখন হয় তখন শরীরে পানি শূণ্যতা দেখা দেয়। ফলে এই সময় যে খাবার গুলো খেলে শরীরে পানির শূণ্যতা হ্রাস পাবে সেগুলো খাওয়া উচিত। নিচে কয়েকটি খাবারের তালিকা দেওয়া হলো।

১. লেবুর শরবত চিনি ছাড়া লবণ দিয়ে।
২. ডাবের পানি।
৩. স্যালাইন।
৪. ভাতের মাড় হালকা লবণ দিয়ে।

এছাড়াও তরল জাতীয় এবং লবণ জাতীয় খাবার খেতে হবে। আর বেশি করে স্যালাইন এবং পানি খেতে হবে। আর মুখের রুচি না থাকলে লেবু খাবেন বেশি করে।

আরও পড়ুন – পাতলা পায়খানা হলে যা ভুলেও খাবেন না 

শেষকথা

তো ভিউয়ার্স আশা করছি এই পোস্ট টি আপনাদের কাছে অনেক টা ভালো লেগেছে। ভালো লেগে থাকলে কিন্তু অবশ্যই কমেন্ট করে জানাবেন আমাদের। আর এরকম সব পোস্ট পেতে প্রতিদিন ভিজিট করতে থাকুন আমাদের এই ওয়েব সাইট টি। আবার দেখা হবে পরবর্তী কোনো পোস্ট এ। সে পর্যন্ত সকলে ভালো থাকুন সুস্থ থাকুন। আল্লাহ হাফেজ।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *