সর্দির ট্যাবলেট এর নাম 2022

হ্যালো ভিউয়ার্স, আশা করি সকলে অনেক ভালো আছেন। আপনাদের কে আমাদের এই সাইটে আমার পক্ষ থেকে জানাই স্বাগতম। আজকের পোস্ট এ আমি আপনাদের সাথে সর্দির ট্যাবলেট এর নাম এই বিষয় টি নিয়ে কথা বলবো। তো চলুন দেরি না করে পোস্ট টি শুরু করে দেওয়া যাক।

 

সর্দি তো আমাদের প্রায় লেগেই থাকে। এটা আর নতুন কিছু না। তবে মাঝে মাঝে এই সর্দি কিন্তু আমাদের বেশ ভুগিয়ে থাকে। বিশেষ করে একটি ঋতু শেষ হওয়ার পর আবার অন্য ঋতু শুরু হওয়ার সময় যদি এই রোগ টি হয়ে যায় তবে এটা অনেক দিন আমাদের ভুগিয়ে থাকে।

তো সর্বদা সর্দি থেকে দূরে থাকতে হবে। তবে যদি সর্দি একবার হয়ে যায় তবে কোন সর্দির ট্যাবলেট খেলে কাশি সেরে যায় সেটা অনেকেই জানেন না। তো আজকের পোস্ট এ আমরা জানবো সর্দি সম্পর্কে এবং সর্দির ট্যাবলেট এর নাম সম্পর্কে।

 

আরো পড়ুনঃ ব্রনের কালো দাগ দূর করার উপায়

সর্দির ট্যাবলেট এর নাম

 

সর্দির ট্যাবলেট আমাদের বাংলাদেশে অনেক রকমের রয়েছে। তবে সেখান থেকে ডাক্তারদের পরামর্শ অনুযায়ী কোন ঔষধ গুলো খেলে ভালো হবে সেগুলোর থেকে কয়েকটি সর্দির ট্যাবলেট এর নাম আমি আপনাদের জন্য নিচে দিয়ে দিলাম।

১. হিস্টাসিন।
২. হিস্টালিক্স।
৩. কিটো এ – ১০০ (এমজি)।
৪. বেক্সিমকো।
৫. টোফেন।

সর্দির ট্যাবলেট এর জন্য এই ৫ টি ঔষধ সবথেকে ভালো বলে ডাক্তাররা মনে করেন। কেননা এই ঔষধ গুলো খুব দ্রুতই ঠান্ডা সর্দি নিধন করতে সাহায্য করে। তবে এখান থেকে হিস্টাসিন বাংলাদেশের মানুষ বেশি ব্যবহার করে। কেননা এটি প্রতি পাতা ৫ টাকা। এবং খুব ছোট হওয়ায় খেতেও সমস্যা হয় না খুব একটা।

 

সর্দির সিরাপের নাম

 

অনেকেই আছেন যারা ট্যবলেট খেতে পছন্দ করেন না। তো তারা কিন্তু চাইলেই সর্দির জন্য কাশির সিরাপ খেতে পারেন। তবে আগেই জানিয়ে রাখি সর্দির সিরাপ কিন্তু বেশ তিতে হয়ে থাকে। যাই হোক নিচে কয়েকটি ভালো কার্যকরী সর্দির সিরাপ এর নাম দেওয়া হলো।

১. এডোভাস,
২. রেকোমকফ,
৩. তুসকা।

এই তিনটি সিরাপই হলো বেস্ট সর্দির সিরাপ। আপনারা চাইলে এই সিরাপ গুলো কাশির সমস্যার জন্যও খেতে পারেন। এগুলোর থেকে কোনো একটি খেলে আর কোনো সিরাপ বা ট্যবলেট খাওয়ার প্রয়োজন হবে না।

 

সর্দির ট্যাবলেট এর নাম
সর্দির ট্যাবলেট এর নাম

সর্দির এন্টিবায়োটিক ট্যবলেট এর নাম

 

সব কিছুর জন্যই এন্টিবায়োটিক খাওয়ার প্রয়োজন হয় না। কেননা এন্টিবায়োটিক ঔষধ তখনই প্রয়োজন হয় যখন সেই রোগটি ভাইরাসের আক্রান্তে হয়ে থাকে। সর্দি ভাইরাসের কারণে হয় না। এটি সাধারণ একটি রোগ। তাই এই রোগের জন্য এন্টিবায়োটিক না খাওয়াই ভালো।

 

বাচ্চাদের সর্দির এন্টিবায়োটিক ট্যাবলেট এর নাম

 

যেহেতু বড়দের জন্যই এন্টিবায়োটিক খাওয়া ঠিক নয় এই রোগের জন্য। তাই আমি রিকোমান্ড করবো বাচ্চাদেরও সর্দির এন্টিবায়োটিক থেকে দূরে রাখতে। কেননা কোনো জিনিস অধিক মাত্রায় শরীরে পৌছালে পরে আমাদের শরীরের ক্ষতি হয়।

 

কখন সর্দির ট্যাবলেট খেতে হবে

 

আপনারা যে কোনো ঔষধ ক্রয় করার সময় ফার্মেসি থেকে বা ডাক্তার রা অবশ্যই বলে দেন কোন ঔষধ কখন কখন খেতে হবে। তবে অনেকেই সেটা ভুলে যান বা মনে থাকে না।

তো তাদের জন্য জানিয়ে রাখি, সর্দির সমস্যা তেও যতদিন না রোগ টি সেরে যায় ততদিন ৩ বেলা সর্দির ট্যাবলেট খাওয়া উচিত।

[box type=”warning” align=”aligncenter” class=”” width=””]কখনো কোনো রোগ কে সাধারণ করে দেখবেন না। সর্বদা সকল রোগের চিকিৎসার জন্য ডাক্তারের পরামর্শ অবশ্যই নিবেন। তবে আমরা চেষ্টা করে থাকি আপনাদের নির্ভুল তথ্য দেওয়ার জন্য।

তারপরও যদি কোনো ভূল হয়ে থাকে তা হলে তা ক্ষমাসুন্দর দৃষ্টিতে দেখার জন্য এবং তা সুধরে দেওয়ার অনুরোধ রইলো। এবং যে কোনো ঔষধ বা ট্যাবলেট খাওয়ার আগে অবশ্যই ডাক্তারের পরামর্শ নিবেন।[/box]

 

শেষ কথা

 

তো ভিউয়ার্স আজকের এই পোস্ট এ আপনারা জানলেন, কয়েকটি কাশির ট্যাবলেট এর নাম এবং সর্দি কাশি সম্পর্কে। আশা করছি এই পোস্ট টি আপনাদের কাছে অনেক টা ভালো লেগেছে।

ভালো লেগে থাকলে কিন্তু অবশ্যই কমেন্ট করে জানাবেন আমাদের। আর এরকম সব পোস্ট পেতে প্রতিদিন ভিজিট করতে থাকুন আমাদের এই ওয়েব সাইট টি তে। আবার দেখা হবে পরবর্তী কোনো পোস্ট এ। সে পর্যন্ত সকলে ভালো থাকুন সুস্থ থাকুন। আল্লাহ হাফেয। আবারো আমাদের সাইট ভিজিটর করুন এই কামনা করি ।

 

ট্যাগঃ সর্দির ট্যাবলেট এর নাম ।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *