স্বপ্নে সুরা ইখলাস পড়লে কি হয়?

স্বপ্নে সুরা ইখলাস পড়লে কি হয়?

সুপ্রিয় পাঠক । আপনার মনে হয়তো প্রশ্ন এসেছে স্বপ্নে সূরা ইখলাস পড়লে কি হয় ? অথবা কেউ আপনাকে এই প্রশ্নটি করেছেন । নিজের জ্ঞানের সমৃদ্ধি এবং অন্যকে জানানোর লক্ষ্যে উত্তরটি আপনার জেনে রাখা প্রয়োজন । তাই এখানে অত্যন্ত সংক্ষেপে উক্ত বিষয়ে আলোকপাত করা হলো ।

সুরা ইখলাসের পরিচয়:

পবিত্র কুরআনের ১১২ নাম্বার সূরা হলো সূরা ইখলাস। এটি মক্কায় নাযিল হয়েছে । এই সুরাটিতে চারটি আয়াত এবং একটি রুকু রয়েছে । এই সূরার মধ্যে মহান আল্লাহ তাআলার পরিচয় ক্লিয়ার করা হয়েছে । যা অন্যান্য সূরাগুলোতে করা হয়নি । এজন্য এ সূরা তাওহীদের ক্ষেত্রে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখে ‌।

 

সুরা ইখলাসের ফজিলত:

সূরা ইখলাসের অসংখ্য ফজিলত আছে । আছে রুকইয়া করার অনেক নিয়ম ।‌ এখানে সংক্ষেপে সূরা ইখলাছের দুটি ফজিলত উল্লেখ করা হলো ।

১. হযরত আবু সাঈদ খুদরি রাদিআল্লাহু তা’আলা আনহু থেকে বর্ণিত । জনৈক ব্যক্তি অন্য ব্যক্তিকে রাতে বারবার সূরা ইখলাস পড়তে শুনেছেন । অতঃপর সকালে নবী কারীম সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লামকে এ বিষয়টি অবহিত করা হলো । নবী কারীম সাল্লাল্লাহু ওয়া সাল্লাম তখন বলেন, ওই সত্তার শপথ ! যার কুদরতের হাতে আমার জীবন । অবশ্যই এই সূরা কোরআন মাজিদের এক-তৃতীয়াংশের সমান । ( সহীহ বুখারী, হাদীস নং ৫০১৩,আবু দাউদ, হাদীস নং ১৪৬১)

সুরা ইখলাস সম্পর্কে হাদিস

২. হযরত মুয়াজ ইবনে আনাস জুহানী রাদিয়াল্লাহু তা’আলা আনহু বলেন , নবী কারীম সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম বলেছেন যে ব্যক্তি সূরা কুলহু আল্লাহু আহাদ দশবার পড়বে আল্লাহ তা’আলা তার জন্য জান্নাতে একটি প্রসাদ নির্মাণ করবেন । এ কথা শুনে ওমর ইবনে খাত্তাব রাদিয়াল্লাহু তা’আলা আনহু বললেন তাহলে তো আমরা অনেক প্রসাদের অধিকারী হয়ে যাব । (অর্থাৎ অধিকারে এই সূরা পাঠ করব । ফলে আল্লাহ আমাদের অনেক প্রসাদ দান করবেন । ) রাসূলে কারীম সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম বললেন আল্লাহ তায়ালার দান আরো প্রশস্ত, আরো উৎকৃষ্ট । ( মুসনাদে আহমদ, হাদীস নং ১৫৬১০)

See also  অবাধ্য সন্তান বাধ্য করার আমল | সন্তানকে বাধ্য করার উপায়

স্বপ্নে সুরা ইখলাস পড়লে কি হয়?

স্বপ্ন প্রধানত তিন কারণে হয়ে থাকে ‌।

১. আল্লাহর পক্ষ থেকে ।

২. শয়তানের পক্ষ থেকে ।

৩. শারীরিক অসুস্থতা বা সামাজিক কারণে ।

যদি স্বপ্নের মাধ্যমে কোরআন-সুন্নাহের বাইরে গিয়ে কোন বিষয়ের নির্দেশ দেয়া হয় তাহলে এটি শয়তান এর পক্ষ থেকে হয়েছে বলে বুঝে নিতে হবে ।

পড়ুন – স্বপ্নে আয়াতুল কুরসি পড়লে কি হয় 

শারীরিক অসুস্থতা বা সামাজিক বিভিন্ন কারণে দুঃস্বপ্ন দেখার কোনো ব্যাখ্যা নেই । আর হ্যাঁ যদি স্বপ্ন আল্লাহর পক্ষ থেকে হয় তাহলে এর ব্যাখ্যা আছে । বিজ্ঞ আলেম ওলামাগণই ব্যাখ্যা দিতে পারেন । তাই ব্যাখ্যা জানতে হলে তাদের কাছে যাওয়া প্রয়োজন ।

এবার আসুন মূল প্রসঙ্গে স্বপ্নে সুরা ইখলাস পাঠ করতে দেখলে কি হয় ? মূলত উক্ত বিষয়ে কোরআন এবং হাদীসে স্পষ্ট কোন নির্দেশনা নেই । তাই পৃথিবী বিখ্যাত স্বপ্নের ব্যাখ্যাকার আল্লামা ইবনে সিরিন রহ: এর মতামত উল্লেখ করা হলো । তিনি লিখেছেন, স্বপ্নের সূরা ইখলাস পড়তে দেখা ভালো । তার মনের আশা পূরণ হতে পারে। তিনি খ্যাতি অর্জন করতে পারেন । জীবন যাপন চমৎকার হতে পারে ।

 

আবার অনেককে বলতে শোনা যায় যে , আল্লাহর প্রিয় বান্দারা মৃত্যুর আগে সুরা ইখলাস বেশি পড়েন‌। স্বপ্নে সুরা ইখলাস পড়তে দেখেন । এটি ঈমান নিয়ে মারা যাওয়ার লক্ষণ।
আল্লাহ তা’আলা ভালো জানেন ।

সুরা ইখলাস আরবী

بِسۡمِ اللّٰہِ الرَّحۡمٰنِ الرَّحِیۡمِ .قُلْ هُوَ اللَّهُ أَحَدٌ – اللَّهُ الصَّمَدُ – لَمْ يَلِدْ وَلَمْ يُولَدْ – وَلَمْ يَكُن لَّهُ كُفُوًا أَحَدٌ.

সুরা ইখলাস উচ্চারণ:

কুলহু আল্লাহু আহাদ । আল্লাহুস সমাদ । লাম ইয়ালিদ ওয়া লামউলাদ । ওয়া ইয়া কুল্লাহু কুফু ওয়ান আহাদ ।

 

শেষকথাঃ

স্বপ্নে সুরা ইখলাস পড়লে কি হয়?  এই শিরোনামের আজকের লেখা এখানেই শেষ করছি। আশা করছি আজকের এই লেখা থেকে আপনারা উপকৃত হবেন। ভালো থাকুন সুস্থ থাকুন।  আমাদের সাথেই থাকুন

See also  বিপদ থেকে বাঁচতে ১০ কার্যকরী দোয়া

 

Leave a Comment