হায়েজ অবস্থায় আয়াতুল কুরসি পড়া যাবে ?

হায়েজ অবস্থায় আয়াতুল কুরসি পড়া যাবে ?

আসসালামু আলাইকুম ওয়া রহমাতুল্লাহ । কেমন আছেন প্রিয় দ্বীনি বোন ও ভায়েরা । আশা করি ভালো আছেন । আমিও আলহামদুলিল্লাহ ভালো আছি । ইতিপূর্বে আমরা আমাদের এই ওয়েবসাইটে ayatul kursi banglaশিরোনামে একটি আর্টিকেল লিখেছিলাম । সেখানে আমরা আয়াতুল কুরসি বাংলা উচ্চারণ ও অর্থ সহ আয়াতুল কুরসি নিয়ে বিস্তারিত কথা বলেছিলাম ।  আজকে আমরা কথা বলবো আয়াতুল কুরসি নিয়ে আরো একটি বহূল জিঙ্গাসিত প্রশ্ন হায়েজ অবস্থায় আয়াতুল কুরসি পড়া যাবে কিনা ? আমরা চেষ্টা করবো কোরআন ও হাদিস থেকে যথাযথ উত্তর দেওয়ার ।

হায়েজ অবস্থায় আয়াতুল কুরসি পড়া যাবে ?

জ্বি হায়েজ অব্স্থায় আপনি আয়াতুল কুরসি পড়তে পারবেন । পিরিয়ডে বা হায়েজ অবস্থায় এমন সব আয়াত পড়া যাবে, যেসব দোয়ার অর্থ প্রকাশ করে। অথবা আল্লাহর জিকির, প্রশংসা, বড়ত্ব বুঝায়। এ অবস্থায় এমন কোন আয়াত পড়া যাবেনা যা দ্বারা আল্লাহর নির্দেশ এবং নিষেধাজ্ঞা, পূর্বের অথবা ভবিষ্যতের কোন ঘটনা অথবা ঘটনা সম্পর্কিত তথ্য বুঝায়। মোটকথা, এ অবস্থায় সাধারণ তেলাওয়াতের উদ্দেশ্যে কোরআন পড়া যাবেনা

হায়েজ অবস্থায় আয়াতুল কুরসি পড়া যাবে ?
হায়েজ অবস্থায় আয়াতুল কুরসি পড়া যাবে ?

হায়েজ অবস্থায় আয়াতুল কুরসি পড়া যাবে কি ?

 

উল্লেখিত মূলনীতি অনুসারে, আপনি যদি নিয়ত রাখেন আল্লাহর প্রশংসাপূর্ণ আয়াতের মাধ্যমে জিন এবং শয়তানের ক্ষতি থেকে সুরক্ষার জন্য পিরিয়ডের সময় ঘুমানোর আগে আয়াতুল কুরসি, তিনকুল (সুরা ইখলাস, ফালাক, নাস) পড়বেন, তাহলে দোয়া হিসেবে এটা পড়া যাবে। তবে আপনি সুরা কাফিরুন পড়তে পারবেন না কারণ এটা উপরের উল্লেখিত শর্ত পূরণ করে না।
আল্লাহ তা’আলাই ভালো জানেন।

দারুল ইফতা
দারুল উলুম দেওবন্দ
(Fatwa: 212/227/N=1433)

 

হায়েজ অবস্থায় নিষিদ্ধ কাজ কি কি ?

 

See also  Ayatul Kursi Bangla ( আয়াতুল কুরসি বাংলা ) উচ্চারণ ,অর্থ , অনুবাদ ও ফজিলত

আমাদের জানতে হবে হায়েজ অবস্থায় নিষিদ্ধ কাজ কি কি ? হায়েয অবস্থায় কুরআন তেলাওয়াত করা নিষিদ্ধ। হাদিস শরিফে এসেছে-

‘হায়েযগ্রস্ত মহিলা কুরআন তেলাওয়াত করবে না।’ [মুসান্নাফে ইবনে আবি শায়বা, হাদিস: ১১০৪]

হায়েজ অবস্থায় আরো কিছু নিষিদ্ধ কাজের তালিখে দেওয়া হলো।

১ । হায়েজ অবস্থায় সহবাস করা যাবে না

২ । হায়েজ অবস্থায় কোরআন স্পর্শ করা যাবে না

৩ । হায়েজ অবস্থায় নামাজ পড়া যাবে না

৪ । হায়েজ অবস্থায় রোজা রাখা যাবে না ।

৫। হায়েজ অবস্থায় কাবা ঘর তাওয়াফ বা মসজিদে প্রবেশ করা যাবে না

শেষকথাঃ

 

প্রিয় পাঠক হায়েজ অবস্থায় আয়াতুল কুরসি পাঠ করা যাবে কিনা । সেই প্রশ্নের উত্তর আশা করি পেয়েছেন । এরকম জিবনঘনিষ্ঠ আরো প্রশ্নের উত্তর পেতে আমাদের সাথে থাকুন । ধন্যবাদ ।